1. admin@bd-journalist.com : বিডি জার্নালিস্ট : বিডি জার্নালিস্ট
  2. miraj20@gmail.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. commercial.rased@gmail.com : Staff Reporter : Staff Reporter
  4. newuser@mail.com : Staff Reporter : Staff Reporter
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

নারায়ণগঞ্জে নিহত বেরে ৫২ জন

নিজস্ব প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১
[ফাইল ছবি ]

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সজীব গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজের ফুডস ফ্যাক্টরিতে (সেজান জুসের কারখানা) লাগা আগুনে অন্তত ৫২ জন নিহত হয়েছেন। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় অধিকাংশ মরদেহই কারখানার দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ তলা থেকে উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস।
কারখানার শ্রমিক ও ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, কারখানাটি তিন শিফটে পরিচালিত হতো। সেখানে কাজ করেন দুই হাজারের বেশি শ্রমিক। কারখানাটিতে সেজান জুসের কর্ক ও লেভেল প্যাকেটিংয়ের কাজ করা হতো। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা ৪২ মিনিটে আগুনের সূত্রপাত ঘটে নিচ তলায়। ভবনটির ছাদ থেকে ২৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস। তবে জীবন বাঁচাতে গিয়ে অনেক শ্রমিক ভবনের ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আহত হন। নিহতও হন কয়েকজন, যাদের হাসপাতালে নেওয়ার পর মৃত ঘোষণা করা হয়।
অগ্নিনির্বাপণের দায়িত্বে থাকা ফায়ার সার্ভিসের মুস্তাফিজ নামের এক ফাইটার বলেন, কারখানা ভবনের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ তলা থেকেই অধিকাংশ মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ভবনটির প্রতিটি গেট তালাবদ্ধ ছিল। প্রতিটি সিঁড়ি নেটের জাল দিয়ে আটকানো দেখা গেছে। হয়ত ওপরে ওঠার সিঁড়ির মুখ নেট দিয়ে আটকানো থাকায় অনেকে চাইলেও ছাদে যেতে পারেননি। এছাড়া সামনে দিয়ে বের হওয়ার সুযোগও ছিল না আগুনের কারণে। যে কারণে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে বলে মনে করেন তিনি।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশন ও মেইনটেনেন্স) লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান বলেন, আগুনের কারণ অনুসন্ধানে তাকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে আমরা কাজ করছি। আগুন এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে এখনও পুরোপুরি নির্বাপণ হয়নি। নির্বাপণের চেষ্টা চলছে।
ভবনের চারটি ফ্লোর থেকে ৪৯টি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর আগে তিনজন হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান।
অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া ভবনটিতে এখন ডাম্পিংয়ের কাজ চলছে- জানিয়ে লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান বলেন, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ তলায় ডাম্পিংয়ের কাজ শেষ। পঞ্চম ও ষষ্ঠ তলা বাকি। ওই দুই তলা হচ্ছে কারখানার গোডাউন। তবুও আমরা সার্চ করছি, আশা করছি ভেতরে আর কোনো মরদেহ নেই।
কীভাবে আগুনের সূত্রপাত এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কত, তা আগামী ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।
বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৫টার পর রূপগঞ্জ উপজেলার কর্ণগোপ এলাকায় অবস্থিত সজীব গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান হাসেম ফুডস-এর ‘সেজান জুস’ কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১৮টি ইউনিটের ১১০ জন সদস্য আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করেন। শুক্রবার (০৯ জুলাই) দুপুর ১২টা ৩৫ মিনিটে আগুন মোটামুটি নিয়ন্ত্রণে আসে। এরপরই শুরু হয় মরদেহ উদ্ধারের কাজ।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2021 bd-journalist.com
Theme Customized By newspadma.Com